বিভিন্ন ধরনের ত্বক এবং ত্বকের পরিচর্চার কিছু টিপস

0
4776
ফেসপ্যাক

ত্বকের পরিচর্যার জন্য আমাদের মাথা ব্যাথার শেষ নেই।তাই আজকে আমি বিভিন্ন ধরনের ত্বক এবং ত্বকের পরিচর্যার কিছু টিপস আপনাদের সামনে উপস্থাপন করব। কিন্তু ত্বকের পরিচর্যার আগে স্বাভাবিক ও সুস্থ অবস্থায় শরীরের এই অঙ্গটি কিভাবে সময়ের সাথে সাথে পরিবর্তিত হয় সেটা জানা না থাকলে ঠিকমতো পরিচর্চা সম্ভব নয়। তাই আমি মনে করি প্রথমেই ত্বকের গঠন ও প্রকৃতি সম্পর্কে একটু জেনে রাখা ভালো।

ত্বকের গঠন কিছুটা জটিল। বংশগতি, পরিবেশ, বয়স সঠিক পরিচর্যার ত্বকের গঠনকে প্রভাবিত করে থাকে। তবে আদর্শ ত্বক হচ্ছে পরিষ্কার, সতেজ, টানটান, নমনীয় ও মসৃণ ধরনের। ত্বকের রং কালো বা ফর্সা যাই হোক না কেন তা নিয়ে চিন্তা করার খুব বেশি দরকার নেই। সুন্দর ত্বক বেশি তৈলাক্ত বা শুষ্ক কোনোটিই নয়। আমরা সাধারণত ত্বকের বিষয়ে আলোচনা করলে সাধারণত মুখমন্ডলের ত্বকের কথাই বুঝি কিন্তু বিষয়টা মোটেই তেমনটা নয়। আজ আমি বিভিন্ন ধরনের ত্বকের গঠন এবং এদের যত্ন করার কিছু নিয়ম আপনাদের সামনে তুলে ধরবো।

ডায়মন্ড ফেসিয়াল করতে কত টাকা লাগে

ত্বকের প্রকারভেদ

ত্বক সাধারণত চার ধরনের হয়

  • স্বাভাবিক ত্বক
  • মিশ্র ত্বক
  • তৈলাক্ত ত্বক এবং
  • শুষ্ক ত্বক

স্বাভাবিক ত্বক

যে ত্বক স্বাভাবিক ভাবে পরিষ্কার মসৃণ আর সজীব তাকেই স্বাভাবিক বলা হয়। যারা খুব বেশি ভাগ্যবতী তারাই সাধারণত স্বাভাবিক ত্বকের অধিকারী হয়ে থাকে। ভাগ্যবতী বলার কারণ হচ্ছে সাধারণত খুব বেশি সংখ্যক মেয়েদের স্বাভাবিক ত্বক হয়ে থাকে না। স্বাভাবিক ত্বকের রূপচর্চা খুবই সাধারণ এবং সহজ। দিনে একবার বা দু’বার ফেসওয়াশ বা সাবান দিয়ে ভালোভাবে মুখ পরিষ্কার করে নিলেই চলবে।

গরমকালে দিনের বেলায় একটু মশ্চারাইজার হালকা ভাবে লাগিয়ে নিতে পারেন কারণ গরমকালে আমাদের ত্বক অনেক বেশি উত্তেজিত থাকে।

চোখের নিচের কালো দাগ দূর

শীতকালে শুকনা বা শুষ্ক হওয়ায় চামড়ায় টান ধরে তাই হালকা ধরনের কোন লোশন ইউজ করতে পারেন, লোশন নির্বাচনের ক্ষেত্রে নিজের পছন্দের ব্র্যান্ডটি বেছে নিতে পারেন। তবে কোন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠানে যদি আপনি মেকআপ ব্যবহার করেন তাহলে মেকআপ ব্যবহার তোলার জন্য মেকআপ তোলার নিয়ম গুলো মেনে চলতে হবে।

দুধের কি ভিটামিন আছে

মিশ্র ত্বক

যাদের মিশ্র ত্বক থাকে তাদের সচরাচর নাকের ডগা বা তার আশেপাশে, চিবুক তেলতেলে হয়ে ওঠে তাছাড়া অন্যান্য অংশগুলো শুকনো থাকে। সাধারণত কুড়ি থেকে ত্রিশ বছর বয়স কত মিশ্র ত্বকের ভাব থাকে। মিশ্র ত্বক যাদের তাদের ও সমস্যা খুব বেশি নয় তাই পরিচর্যাও সাধারণ ত্বকের মতই সহজ হবে। স্বাভাবিক ত্বকের মতই আপনারাও দিনে দুইবার ফেসওয়াশ বা সাবান দিয়ে মুখ ভালো ভাবে ধুয়ে ফেলতে পারেন।

ত্বক ফর্সা করার উপায়

তবে মুখের তেলতেলে অংশগুলো গুলোতে বিশেষ খেয়াল করে দিনে একবার বা দু’বার ভালো মানের কোন লোশন লাগিয়ে একটুকরা তুলো দিয়ে ভালো ভাবে ঘষে ঘষে তুলতে হবে অথবা ভারী ধরনের কোন ক্রিম মুখের সেই জায়গায় ভালোভাবে লাগিয়ে নিলেই হবে। সাধারণত চিনির সাথে লেবুর রস মিশিয়ে তেলতেলে জায়গাগুলোতে লাগালেও ভালো ফল পাওয়া যেতে পারে।

শীতকালে ত্বকের যত্নে ময়েশ্চারাইজার ক্রিম

তৈলাক্ত ত্বক

যাদের ত্বকে তেলের ভাব বেশি অর্থাৎ অল্পতেই মুখটা তেলতেলে হয়ে যায় সাধারণত সেটাই তৈলাক্ত ত্বক। তৈলাক্ত ত্বক যদি ভালোভাবে পরিষ্কার করা না হয় তাহলে ত্বকে সাধারণত ব্ল্যাকহেডস, ব্রণ। ও নানান ধরনের ত্বকের সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি থাকে। যাদের তৈলাক্ত ত্বক থাকে তাদের সাধারণত চামড়াই নানান ধরনের দাগের সৃষ্টি হয়।

ব্রণ হওয়ার বিভিন্ন কারণ ও প্রতিকারব্রণ হওয়ার বিভিন্ন কারণ ও প্রতিকার

যাদের চামড়ার প্রকৃতির তেলতেলে অর্থাৎ যাদের তৈলাক্ত ত্বক তাদের অন্তত দৈনিক পাঁচ থেকে ছয় বার সাবান দিয়ে ভালভাবে মুখ ধোয়ার অভ্যাস করা উচিত। দিনের যেকোনো সময় তৈলাক্ত ত্বকের মধ্যে ভালো মানের লোশন ব্যবহার করা যেতে পারে। আর গরম কালে তৈলাক্ত ত্বকের জন্য সাধারণত বেশি সমস্যা দেখা দেয় সেই সময় কোন ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে বিশেষ ধরনের ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। আর শীতকালে খুব হালকা ধরনের বিভিন্ন বডি লোশন ব্যবহার করতে পারেন।

মুখের কালো দাগ ও গর্ত দূর করার উপায়

শুষ্ক ত্বক

যাদের ত্বক সাধারণত শুষ্ক থাকে ও তার ড্রাই থাকে সেটাই সাধারণত শুষ্ক ত্বক বলা হয়। দিনের বেলায় গোসলের আগে নারিকেল বা অলিভ অয়েল অনেকক্ষণ ধরে ঘষে ঘষে অন্তত আধাঘন্টা গায়ে রেখে শুকিয়ে নিতে হবে তাহলে শুষ্কা কিছুটা হলেও কমে যাবে। শুষ্ক ত্বকে যেহেতু ত্বক শুকনা থাকে সেক্ষেত্রে আপনার শরীরের বিভিন্ন জায়গা থেকে ছোট ছোট চামড়া উঠে যেতে পারে সে ক্ষেত্রে আপনি ভাল মানের কোন লোশন ব্যবহার করবেন।

নাইটক্রিম

শুষ্ক ত্বকের প্রধান সমস্যা হচ্ছে আপনার শরীরের বিভিন্ন জায়গা থেকে ছোট ছোট চামড়া উঠে যাওয়া সুতরাং ভালো মানের কোন লোশন অবশ্যই সারা বছর ব্যবহার করা উচিত।

ত্বক ফর্সা করার উপায়

পরিশেষে বলা যায় যে আপনার যে ধরনের ত্বক হোক না কেন দিনে বা রাতে যেকোনো সময় হোক বাইরে থেকে ঘুরে আসার সাথে সাথে ভাল মানের ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলা উচিত। আর মুখে যদি মেকআপ তাকে অবশ্যই ফেসওয়াশ করার আগে আপনার মুখের মেকআপ টা তুলে নেওয়া উচিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here