গাছ লাগানোর উপকারিতা

0
683
গাছ লাগানোর উপকারিতা

বন্ধুরা, আজকে আমি এমন একটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি যে বিষয়টি আলোচনা করলে শেষ হওয়ার নয়। এটি এমন একটা বিষয় যেটা আমাদের মানব জাতির জন্য খুবই অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত। 

হ্যাঁ বন্ধুরা, আজ আমার আলোচনার বিষয় হচ্ছে গাছ লাগানোর উপকারিতা নিয়ে। কতটুকু নিয়ে শুরু করব আর কোথায় গিয়ে শেষ করবো তা আসলে বুঝতে পারছি না। কারণ গাছ আমাদের জীবনে এমন একটা অংশ জুড়ে আছে আমরা গাছ ছাড়া কোন কিছু চিন্তাও করতে পারি না।

মানবজীবনে গাছ লাগানোর উপকারিতাঃ

গাছ নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে দেখা গেছে, মহান আল্লাহতায়ালা পৃথিবীতে মানুষ সৃষ্টি করার আগে মানুষের বসবাসের উপযোগী করার জন্য পরিবেশ তৈরি করে দিয়েছে। প্রাকৃতিকভাবেই গাছপালা পাহাড়-পর্বত নদী-নালা এগুলো সৃষ্টি হওয়ার পরই আল্লাহতালা মানুষকে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। সুতারাং এখান থেকে বলা যায় মানুষের বেঁচে থাকার জন্য গাছ আমাদের জন্য কতটুকু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

জীবজগতের অস্তিত্ব রক্ষায় গাছের ভূমিকাঃ

এই পৃথিবীতে প্রত্যেকটা জিনিস একটি আরেকটির উপর নির্ভরশীল। ঠিক তেমনভাবে প্রাণীকুল উদ্ভিদের উপর নির্ভর করে থাকে। আমাদের বেঁচে থাকার জন্য যে অক্সিজেনের প্রয়োজন হয় তা আমরা গাছ থেকে পেয়ে থাকি। পৃথিবীতে যত বেশি গাছ রোপন করা হবে তত বেশি আমরা সুন্দরভাবে বাঁচতে পারব। আমরা যে কার্বন-ডাই-অক্সাইড বের করে দিয়ে থাকি,গাছ  সে কার্বণ-ডাই-অক্সাইড গ্রহণ করে পরিবেশকে দূষণমুক্ত রাখে। এখান থেকে বলা যায় জীবজগতের অস্তিত্ব রক্ষায় গাছের ভূমিকা অপরিহার্য। 

জলবায়ু পরিবর্তনে গাছ লাগানোর উপকারিতাঃ  

বর্তমান সময়ে WHO এর বিভিন্ন সংস্থা গবেষণা করে এটাই প্রমাণ করেছে, জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে আমাদের অবশ্যই বেশি বেশি গাছ রোপণ করতে হবে। কারণ যে পরিমাণে জনসংখ্যা বাড়ছে সে পরিমাণে বসত বাড়ি বানানোর কথা চিন্তা করতে গিয়ে আমাদের অনেক গাছ কেটে ফেলতে হচ্ছে। যার কারণে আমরা নিঃশ্বাসে যে বিষাক্ত কার্বন-ডাই-অক্সাইড বের করে দিচ্ছি সেটা গ্রহণ করার মত গাছ আমাদের আশেপাশে থাকছে না। ফলে পৃথিবীতে উষ্ণতার পরিমাণ বেড়ে গিয়ে জলবায়ু পরিবর্তন খারাপের দিকে যাচ্ছে। ভবিষ্যতে যদি আমরা গাছ লাগানোর উপকারিতা না ভাবি, তাহলে আমাদের জন্য অনেক খারাপ সময় অপেক্ষা করছে। 

বসত বাড়ির সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে গাছ লাগানোর উপকারিতাঃ

আমাদের বাড়ির চারপাশে যদি গাছ না থাকে, তাহলে আমরা বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে পারি। যেমন আমাদের খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা, এই ৫টি মৌলিক চাহিদার জন্য আমরা কিন্তু পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে উদ্ভিদের ওপর নির্ভরশীল। 

সে কারণে আমাদের গাছ লাগানোর উপকারিতা নিজেদেরকে ও বুঝতে হবে, এবং সচেতনতা জন্য আমাদের আশে পাশে যারা আছে সবাইকে গাছ লাগানোর উপকারিতার কথা জানাতে হবে।

পরবর্তী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ সুনিশ্চিত করতে গাছ লাগানোর অপরিহার্যতাঃ  

বন্ধুরা, আমরা সবাই চাই আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম সুন্দর ভাবে বেড়ে উঠুক সুন্দর একটা পৃথিবীতে। এবং সেজন্য আমাদের যেটা করতে হবে, বর্তমান সময়ে জলবায়ু পরিবর্তনের যে খারাপ দিক গুলো আছে সেই দিক গুলো যদি আমরা সমাধান করতে চেষ্টা করি তাহলে আমাদেরকে অবশ্যই বৃক্ষরোপণ এর দিকে নজর দিতে হবে। আমরা খুব সহজেই গাছ লাগানোর মাধ্যমে আমাদের পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখতে পারি। সেই সাথে পরবর্তী প্রজন্মের ভবিষ্যত নিশ্চিত ভাবে গড়ে তুলতে পারি। 

গাছ লাগানোর উপকারিতার কথা বলে শেষ করা যাবে না। তারপরও আমরা আমাদের আশেপাশে যারা আছে সবাইকে নিয়ে গাছ লাগানোর অভ্যাসটা তৈরি করে ফেলব। যাতে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম সুন্দর একটা পৃথিবীতে সুন্দর ভাবে বেঁচে থাকতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here